মেনু নির্বাচন করুন

কৃষি তথ্য সার্ভিস
কৃষি

কৃষি

আমাদের অর্থনীতিতে কৃষির অবদান অনস্বীকার্য। কৃষকদের প্রায় প্রতিদিনই বীজ, ফসল ও জমি সংক্রান্ত কোনো না কোনো সমস্যায় পড়তে হয়। সর্বসাধারণকে তথ্য ও আনুষঙ্গিক সেবা প্রদানের উদ্দেশ্যে পরিচালিত ইউনিয়ন তথ্য ও সেবাকেন্দ্র থেকে কৃষকদেরকে যথাসময়ে সঠিক তথ্য সরবরাহ করার উদ্দেশ্যেই জাতীয় ই-তথ্যকোষের কৃষি পাতাটি। বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহ তাদের তৈরি ও প্রকাশিত গবেষণাধর্মী কৃষিবিষয়ক তথ্যাদি স্বতঃস্ফূর্তভাবে পরিবেশন করে তথ্যকোষের কৃষি বিভাগকে সমৃদ্ধিতে সহায়তা করেছেন। এই বিভাগে কৃষিবিষয়ক তথ্যাদি টেক্সট, অডিও, ভিডিও, এনিমেশন এবং ছবি আকারে পাওয়া যাবে।

এস এম হৃদয় রহমান : ৩০ বছর আগেও যে কৃষক স্বপ্নেও ভাবেননি একটি ফোন কলেই পেতে পারেন কৃষি-সংক্রান্ত সমস্যার সমাধান, বর্তমান সরকারের গত ৫-৭ বছরে প্রযুক্তির উন্নয়নে কৃষি কল সেন্টারে ফোন করে কৃষি জমি থেকেই সেই কৃষক নিমেষেই পাচ্ছেন তাদের কাক্সিক্ষত সমাধান। কৃষি কল সেন্টার ছাড়াও কৃষি তথ্য ও যোগাযোগ কেন্দ্রের (এআইসিসি) আইপিএম এবং আইসিএম ক্লাবের মাধ্যমে খুব অল্প সময়ে সমাধান পাওয়ায় সমৃদ্ধ হচ্ছে বাংলাদেশের কৃষি। কৃষকের কাছে সেবা পৌঁছে দিতে সেই কাজগুলো মূলত করে যাচ্ছে কৃষি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন ‘কৃষি তথ্য সার্ভিস’।

কৃষি তথ্য সার্ভিস ও প্র্যাকটিক্যাল অ্যাকশন বাংলাদেশের যৌথ উদ্যোগে কৃষি তথ্য সার্ভিসের প্রধান কার্যালয়ে কৃষি কল সেন্টারের কার্যক্রম চালাচ্ছে। ২০১২ সালের জুনে এর পরীক্ষামূলক কার্যক্রম শুরু হলেও এখন তা পুরোদমেই চলছে। এই কল সেন্টারের নম্বরে (১৬১২৩) যে কোনো মোবাইল থেকে ফোন করে কৃষি ও কৃষি-সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা তাৎক্ষণিকভাবে বিশেষজ্ঞদের কাছ থেকে সমাধান পাচ্ছেন। কল সেন্টারটিতে ৫ জনের একটি টিম রয়েছে যারা শুক্রবার ব্যতীত সপ্তাহের ৬ দিন সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত এ সেবা দিচ্ছেন।

কৃষি তথ্য ও যোগাযোগ কেন্দ্র (এআইসিসি) গ্রাম পর্যায়ে স্থাপিত কৃষক সংগঠন। আইপিএম-আইসিএম ক্লাবগুলো থেকে বাছাই করে এআইসিসি স্থাপন করা হয়েছে। এসব কেন্দ্রে কম্পিউটার, ল্যাপটপ, মডেম, মাল্টিমিডিয়াসামগ্রী দেয়া হয়েছে এবং প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। গ্রাম পর্যায়ে স্থাপিত এসব এআইসিসির মাধ্যমে কৃষকদের মাঝে তথ্য সেবা দেয়া হচ্ছে। অনলাইনে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বিশেষজ্ঞ পরামর্শ কৃষি তথ্য সার্ভিস থেকে দেয়া হচ্ছে। এর ফলে প্রান্তিক জনগণের মাঝে তথ্য প্রাপ্তির সুযোগ বৃদ্ধি হয়েছে।

কৃষি তথ্য সার্ভিসের এই কার্যক্রমগুলো সম্পর্কে প্রধান তথ্য কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন বলেন, তথ্য ও প্রযুক্তিগতভাবে কৃষকের কাছে সুবিধা পৌঁছে দিতে এবং কৃষি-সংশ্লিষ্ট সবার সুবিধার কথা চিন্তা করেই কৃষি তথ্য সার্ভিস এসব সেবা দিয়েছে এবং প্রদান করে যাচ্ছে। কল সেন্টারসহ প্রতিটি কার্যক্রমই কৃষকের সমস্যা সমাধানে যুগান্তকারী। ফসল উৎপাদন থেকে শুরু করে ফসলের রোগ নির্ণয় সব রকম সেবাই পাচ্ছেন কৃষক।

উল্লেখ্য, ১৯৬১ সালে কৃষি তথ্য সংস্থা হিসেবে আত্মপ্রকাশের পর ১৯৮০ সালে কৃষি তথ্য সংস্থাকে ‘কৃষি তথ্য সার্ভিস’ নামকরণ করা হয়। কৃষি তথ্য সার্ভিসের কৃষি কল সেন্টার এবং কৃষি তথ্য ও যোগাযোগ কেন্দ্র ছাড়াও রয়েছে কৃষিবিষয়ক তথ্য সমৃদ্ধ বাংলা ওয়েবসাইট, কমিউনিটি রুরাল রেডিও, ই-বুক, কৃষি ইনফরমেশন বুথ (কিয়স্ক), আইসিটি ল্যাব, মোবাইল সিনেমা ভ্যানের মাধ্যমে তথ্যপ্রযুক্তি প্রচার, ফিল্ম-ফিলার নির্মাণ, বিটিভিতে প্রচারিত ‘বাংলার কৃষি’ এবং ‘মাটি ও মানুষ’ অনুষ্ঠান, ভিডিও ডকুমেন্টারি ও মুদ্রণসামগ্রী।